আজ- মঙ্গলবার, ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

  করোনাকালে মরুভূমিতে বসিয়ে রাখা হয়েছে অসংখ্য বিমান       সবুজ বাংলাদেশ সুবর্ণচর শাখার ঈদপূর্ণমিলন ও পরিচিত সভা এবং বৃক্ষরোপন কর্মসূচি       তিস্তায় বাঁধ নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন       রাজ্যে লকডাউন’র দিন বদল, নতুন তালিকা প্রকাশ করল নবান্ন       করোনাকালে দেশের রেমিট্যান্স ও রিজার্ভে রেকর্ড       নেপালে আবারও ভূমিধসে ১০ জন’র মৃত্যু       ইংল্যান্ড দল’র ব্যাটিং কোচ’র দায়িত্ব পেলেন ট্রট       শান্তিতে নোবেলজয়ী জন হিউম’র প্রয়াণ       ভ্রমণ পিয়াসীদের পদচারণায় ৫ মাস পরে মুখরিত হয়ে উঠেছে রাজশাহীর চিড়িয়াখানা ও পদ্মাপাড়       নবীগঞ্জে করোনায় মারা গেলেন চিত্তরঞ্জন দাশ       উজিরপুরে মসজিদ কমিটিকে কেন্দ্র করে যুবলীগ সম্পাদকসহ আহত ৫       বাগেরহাটে ইয়াবাসহ দু’বোনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ       রাজশাহীতে লুকু-কালুর জুয়ার আসরে পুলিশের অভিযান, কালুসহ-১২ জুয়াড়ী আটক       নাগেশ্বরীতে শহীদ সাফাত সড়কের নামফলক উন্মোচন        উজিরপুরে জুয়াড়ী রফিক গণধোলাইয়ের শিকার       আফগানিস্তান কারাগারে বন্দুকধারীদের হামলায় নিহত-২১, আহত-৪৩    

হবিগঞ্জে রোদ্রের অভাবে ধান সংগ্রহ ব্যর্থ হওয়ার আশংকা


হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: প্রথমবারের মত মোবাইল অ্যাপস এ কৃষকদেরকে ধান সরবরাহের সুযোগ করে দেয়ায় হবিগঞ্জের কৃষকরা আনন্দিত। কোন ধরনের হয়রানী ছাড়াই তারা ধান সরবরাহ করতে পারছে। আবার অফিসেও নেই কোন তদবির ও চাপ। তারপরও হবিগঞ্জে নির্ধারিত সময়ে আমন ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ার আশংকা করা হচ্ছে। তীব্র শীত এবং রোদ্রের অভাবে ধানের নির্ধারিত আদ্রতা নিশ্চিত করতে না পারায় এই আশংকা দেখা দিয়েছে।

হবিগঞ্জ জেলা খাদ্র নিয়ন্ত্রক এর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এ বছর দেশের নির্দিষ্ট কিছু উপজেলায় মোবাইল অ্যাপস এর মাধ্যমে কৃষক বাছাই করা হয়। এর মাঝে ছিল হবিগঞ্জ সদর উপজেলা। হবিগঞ্জে তালিকাভুক্ত কৃষক হল ৩ হাজার ৯৬৫জন। ২০ ডিসেম্বর নির্ধারিত তারিখে ধান সরবরাহের সুযোগ পাওয়ার জন্য আবেদন করেন ১ হাজার ৪৯৬জন কৃষক। ২৪ ডিসেম্বর অন লাইনে লটারীর মাধ্যমে সুযোগ পান ৮০৪জন কৃষক। এর মাঝে বড় কৃষক হিসাবে ৮৮জন পান ২টন ৪শ কেজি, মাঝারী ২৮৮ জন ১ হাজার ৬শ কেজি এবং ৪৮৮ জন কৃষক পান ১টন করে।

হবিগঞ্জ খাদ্য গুদামে ১ হাজার ৬৪ টন ধান ধান সংগ্রহ কার্যক্রম উদ্বোধন হয় মঙ্গলবার দুপুরে। কিন্তু শীতের কারনে মাত্র তিনজন কৃষক আসেন ধান সরবরাহ করার জন্য। ফলে ২৮ ফেব্রুয়ারী নির্ধারিত সময়ে এই ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়।

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলা গ্রামের কৃষক কুদ্দুল আলী আসেন ধান সরবরাহ করার জন্য। তিনি বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে বলেন মোবাইলে ম্যাসেজ পেয়ে তিনি এখানে ধান দিতে এসেছেন। এবার কোন মধ্যস্বত্বভোগী আসেনি তার কাছে। কোন ধরনের হয়রানীও ছিল না বলে জানান তিনি।

উমেদনগর গ্রামের জহুর আলী বলেন, সব সময় যদি মোবাইল এ্যাপস এ ধান সংগ্রহ করা হয় তাহলে হয়রানী থেকে বাচবে কৃষক। এই পদ্ধতিতে ধান দিতে পেরে সবাই খুশি।

হবিগঞ্জের বিশিষ্ট ধান চাউল ব্যবসায়ী হাবিব খান বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে জানান, ধান সরবরাহের জন্য আর্দতা রাখতে হয় ১৪। কিন্তু রোদ্রের অভাবে ধান শুকাতে পারছে না কৃষক। তিনি ধান সরবরাহের জন্য সময় বৃদ্ধির দাবী জানান।

হবিগঞ্জ খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল আমিনুল ইসলাম ভূইয়া বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে জানান, এ্যাপস এর মাধ্যমে ধান সংগ্রহের ফলে কোন ধরনের তদবীর বা চাপ নেই এখানে। তবে রোদ্রের অভাবে কৃষকদের অসুবিধা হচ্ছে। শৈত্য প্রবাহ কেটে গেলে এই সমস্যা কমে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

আজ মঙ্গলবার (০৭ জানুয়ারী) দুপুরে হবিগঞ্জ খাদ্য গুদামে প্রধান অতিথি হিসাবে ধান ক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাখাওয়াত হোসেন রুবেল। অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রন কর্মকর্তা আব্দুস সালাম, প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, পৌর কাউন্সিলার জাহির উদ্দিন, খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল আমিনুল ইসলাম ভূইয়া, ধান চাউল ব্যবসায়ী হাবিব খান, উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মাহবুবুল হক, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মজিবুর রহমান, ইব্রাহিম হোসেন, সুমন ঘোষ ও মনসুর আলী।

সংবাদ প্রেরক বিটিসি নিউজ এর হবিগঞ্জ প্রতিনিধি মোঃ জুনাইদ চৌধুরী। #

Comments are closed.