আজ- মঙ্গলবার, ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

  করোনাকালে মরুভূমিতে বসিয়ে রাখা হয়েছে অসংখ্য বিমান       সবুজ বাংলাদেশ সুবর্ণচর শাখার ঈদপূর্ণমিলন ও পরিচিত সভা এবং বৃক্ষরোপন কর্মসূচি       তিস্তায় বাঁধ নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন       রাজ্যে লকডাউন’র দিন বদল, নতুন তালিকা প্রকাশ করল নবান্ন       করোনাকালে দেশের রেমিট্যান্স ও রিজার্ভে রেকর্ড       নেপালে আবারও ভূমিধসে ১০ জন’র মৃত্যু       ইংল্যান্ড দল’র ব্যাটিং কোচ’র দায়িত্ব পেলেন ট্রট       শান্তিতে নোবেলজয়ী জন হিউম’র প্রয়াণ       ভ্রমণ পিয়াসীদের পদচারণায় ৫ মাস পরে মুখরিত হয়ে উঠেছে রাজশাহীর চিড়িয়াখানা ও পদ্মাপাড়       নবীগঞ্জে করোনায় মারা গেলেন চিত্তরঞ্জন দাশ       উজিরপুরে মসজিদ কমিটিকে কেন্দ্র করে যুবলীগ সম্পাদকসহ আহত ৫       বাগেরহাটে ইয়াবাসহ দু’বোনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ       রাজশাহীতে লুকু-কালুর জুয়ার আসরে পুলিশের অভিযান, কালুসহ-১২ জুয়াড়ী আটক       নাগেশ্বরীতে শহীদ সাফাত সড়কের নামফলক উন্মোচন        উজিরপুরে জুয়াড়ী রফিক গণধোলাইয়ের শিকার       আফগানিস্তান কারাগারে বন্দুকধারীদের হামলায় নিহত-২১, আহত-৪৩    

রাজশাহী সহ সারা দেশে মৃত্যুঝুঁকি বাড়াচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক সেবন

নিজস্ব প্রতিবেদক: পৃথিবীতে ঔষধের আবিষ্কার হয়েছে মানুষের জীবন রক্ষার জন্য। আবার এই ঔষধ মানুষের জীবননাশের কারন হয়ে দাঁড়াচ্ছে। যার মধ্যে অ্যান্টিবায়োটিক।

প্রেসক্রিপশন ছাড়াই বছরে বিক্রি হচ্ছে অন্তত ৫০ কোটি পিস অ্যান্টিবায়োটিক। নিয়ম না মেনে মাত্রাতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের ফলে জীবাণু ধ্বংস করার সামর্থ্য হারাচ্ছে জীবন-রক্ষাকারী এ ম্যাজিক ড্রাগ।

গবেষণায় উঠে এসেছে, আইসিইউতে মৃত্যু হওয়া ৮০ ভাগ রোগীর শরীরে পাওয়া জীবাণুগুলো সব অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভয়ঙ্কর এ পরিস্থিতি মোকাবিলার অন্যতম প্রধান পথ যে কোনো মূল্যে অ্যান্টিবায়োটিকের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিইউতে ভর্তি শুভজিত এবং অমিত। বয়স ৩০ না পেরুলেও দুজনের শরীরেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নিঃশ্বেষ প্রায়। পরীক্ষা নিরীক্ষার পর জানা যায়, ২০টি অ্যান্টিবায়োটিকের কেবল একটি কাজ করছে দুজনের শরীরে। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে নিময় না মেনে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ায় তাদের শরীরে ওষুধের চেয়েও শক্তিশালী এখন জীবাণু।

এক চিকিৎসক বলেন, একটি অ্যান্টিবায়োটিক যখন আগামী ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে অকার্যকর হয়ে যাবে, তখন এ ধরনের রোগীদের শরীরে জীবাণু আক্রান্ত হলে, তাদের আর অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা করানো যাবে না। ফলে তারা মৃত্যুর ঝুঁকিতে পড়বে।

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ও ছোটখাট সমস্যায় অ্যান্টিবায়োটিক সেবন ও নিয়ম মেনে কোর্স পূরণ না করায় শরীরে জীবাণুর বিরুদ্ধে কার্যকারিতা হারাচ্ছে অ্যান্টিবায়োটিক। অ্যান্টিবায়োটিক না খেয়েও প্রকৃতি ও পরিবেশে থাকা এসব ড্রাগ রেজিস্টেন্স জীবাণু শরীরে প্রবেশ করায় মৃত্যুর কাছে হার মানছে অনেক শিশুও।

এক চিকিৎসক বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে বলেন, আমার কাছে প্রমাণ আছে তিনটা রোগীর, তারা তিনজনই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করতো এবং এ তিনজনই শরীরে এখন অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করছে না। এক ফার্মাসিস্ট বলেন, এখানে আমরা ১০০ প্রেসক্রিপশন পেলে তার মধ্যে ৭০টিতেই অ্যান্টিবায়োটিক থাকে।

জ্বর, সর্দি, হাঁচি কাশির মতো সাধারণ অসুখে রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক না দেবার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের। এক ফার্মাকোলোজিস্ট বলেন, ধরেন যোগ্য চিকিৎসক সাধারণ কারণেও একজন রোগীকে অ্যান্টিবায়োটিক দিচ্ছে, সেই অ্যান্টিবায়োটিকটি তিনি নিময় মেনে গ্রহণ করছেন না। তবে সব সমস্যার সমাধান হচ্ছে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমানো। সম্প্রতি ব্যবস্থাপত্র ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

সংবাদ প্রেরক বিটিসি নিউজ এর নিজস্ব প্রতিনিধি মোঃ মাইনুর রহমান (মিন্টু) রাজশাহী।

Comments are closed.