আজ- শুক্রবার, ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

  কাশ্মীরে আবারও বিজেপি নেতা খুন       মার্কিন ও ইসরাইলি পরমাণু অস্ত্র সবার জন্য হুমকি : ইরান’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী       ভারত সীমান্তে “বিতর্কিত এলাকায়” হেলিপ্যাড নির্মাণ করছে নেপাল       সেনা-পুলিশ বাহিনীকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা       রাণীশংকৈলে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত-৯       চীনা যুদ্ধবিমান’র কাছে পাত্তাই পাবে না ভারত’র রাফায়েল!       “দিল্লি চাই” বলে ইমরানকে খোঁচা সাবেক স্ত্রী রেহাম’র       ভাসছে মুম্বাই       করোনা প্রতিরোধে দামুড়হুদার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের মাস্ক বিতরণ অব্যাহত       রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি ফারুক আর নাই       বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার সিরাজ উদ্দিন লস্কর আর নেই       র‌্যাব-৫ রাজশাহীর মাদক বিরোধী অভিযান ইয়াবসহ আটক       র‌্যাব-৫, চঁপাপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্প কর্তৃক গাঁজার গাছসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক-১       রাসিকের নির্মাণাধীন বিভিন্ন বহুতল ভবনের কাজের অগ্রগতি সংক্রান্ত সভা অনুষ্ঠিত       নাটোরে সরকারী গম আত্মসাৎ মামলায় চেয়ারম্যান কারাগারে       নবীগঞ্জে ১৪ টি ডাকাতি মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার    

বকশীগঞ্জে কোরবানীর গরু নিয়ে বিপাকে খামারি শাহীন খান


বকশীগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি: জামালপুরের বকশীগঞ্জে আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে গরু পালন করে আসছিলেন বকশীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার খামারিরা।

কোরবানির ঈদে বেশি দামে বিক্রির আশায় করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও বেশি দামে গো-খাদ্য খাইয়েছেন খামারিরা।

ফলে ঈদের আগে সঠিক দামে গরু গুলো বিক্রি করতে না পারলে লোকসানের হিসাব গুণতে হবে খামারি ও গরু মালিকদের।

তবে ঈদের আর কয়েকদিন বাকি থাকলেও গরু ক্রেতাদের দেখা পাচ্ছেন না খামারি মালিকরা। ফলে এবার গরু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন খামার মালিক। তেমনি একজন খামার মালিক শাহীন খান ।

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে প্রতি বছরের মতো এবারও সাধুরপাড়া ইউনিয়নের খান পাড়া গ্রামের “খান এগ্রো ডেইরী ফার্ম” এর মালিক শাহীন খান গরু মোটাতাজকারণের লক্ষ্যে নিজ খামারে গরু পালন করতে শুরু করেন।

তার খামারে ছোট বড় মিলিয়ে ২৪টি গরু কোরবানির জন্য পালন করা হয়। গো-খাদ্যের উচ্চ মূল্য থাকা সত্ত্বেও লাভের আশায় উপজেলা প্রাণি সম্পদ কার্যালয়ের পরামর্শক্রমে গরু মোটাতাজারনের কাজ শুরু করেন শাহীন খান।

বর্তমানে তার খামারে ১৫ টি গরু কোরবানীর জন্য প্রস্তুত থাকলেও ক্রেতাদের দেখা মিলছে না। স্থানীয় নঈম মিয়ার বাজার, বকশীগঞ্জ গরুর হাট সহ বেশ কয়েকটি গরুর হাটে বিক্রির জন্য নিয়ে গেলেও হাট গুলোতেও ক্রেতার দেখা মেলেনি। শুধু তাই নয় গ্রাম পর্যায়ের ক্রেতাও নেই এবার।

একদিকে করোনাভাইরাস অন্যদিকে বন্যার কারণে গরু ক্রয়ের ক্রেতা নেই বললেই চলে। ফলে শাহীন খানের মত অনেক খামারি হতাশায় পর্যদুস্ত হয়ে পড়েছেন।

এ ব্যাপারে খান এগ্রো ডেইরী ফার্মের মালিক শাহীন খান বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে জানান, এ বছর দেশে করোনা ভাইরাস আসার পর থেকেই খামারিদের দুর্দশা শুরু হয়েছে। এদিকে গো-খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় গরু পালনের খরচও বেড়ে গেছে দ্বিগুণ।

ফলে এবার ভালো দামে গরু বিক্রি করতে না পারলে লোকসানে পড়তে হবে আমাদের কিন্তু ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না। যদিও দুই একজন ক্রেতা আসেন তারা চাহিদার তুলনায় অর্ধেক দাম হাঁকিয়ে চলে যান। একারণে আমাদের গরু বিক্রি করা সম্ভব হয় না।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার পাল বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে জানান, এ বছর বকশীগঞ্জ উপজেলায় ১১ হাজার ৫০০ গবাদি পশু কোরাবানীর জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

করোনা ও বন্যার কারণে অনেক খামারি তাদের কোরবানীযোগ্য পশু বিক্রি করতে পারছে না তবে জেলা প্রশাসন থেকে অনলাইনের মাধ্যমে অনেক গরু বিক্রি হচ্ছে।

বকশীগঞ্জের ২০ টি খামারের তথ্য অনলাইনে দেওয়া হয়েছে। আশাকরি ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাবে।

সংবাদ প্রেরক বিটিসি নিউজ এর বকশীগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি জিএম ফাতিউল হাফিজ বাবু। #

Comments are closed.