পশ্চিমাদের বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মহাকাশে ইরানের ‘বায়ো-স্পেস ক্যাপসুল’

বিটিসি আন্তর্জাতিক ডেস্ক: পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নিজেদের মহাকাশ কর্মসূচিকে বহুদূর এগিয়ে নিয়েছে ইরান। তারই ধারাবাহিকতায় এবার সফলভাবে নতুন ‘বায়ো-স্পেস ক্যাপসুল’ মহাকাশে পাঠিয়েছে দেশটি।
ইরানের তাসনিম নিউজ এজেন্সির বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে রয়টার্স জানিয়েছে, বুধবার (৬ ডিসেম্বর) নিজেদের তৈরি লঞ্চার ‘সালমান’ এর সাহায্যে ‘বায়ো-স্পেস ক্যাপসুল’ মহাকাশে পাঠায় ইরান।
প্রতিবেদনে বলা হয়, ৫০০ কিলোগ্রাম ওজনের ক্যাপসুলটি নির্মাণ করেছে ইরানের বিজ্ঞান, গবেষণা ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অ্যারোস্পেস রিসার্চ ইনস্টিটিউট। এটিকে ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৩০ কিলোমিটার উচ্চতায় পাঠাতে ব্যবহার করা হয়েছে ‘সালমান’ লঞ্চার।
ক্যাপসুল ও লঞ্চার দুটিই তৈরি করেছে ইরানের বিজ্ঞানীরা। এর মধ্য দিয়ে মহাশূন্যে মানুষ পাঠানোর প্রস্তুতি হিসেবে বায়ো-স্পেস ক্যাপসুল পাঠানোর কাজ সম্পন্ন করল ইরানের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা।
মহাকাশে মানুষ বা জীবন্ত প্রাণী আনা-নেয়ার কাজে বায়ো-স্পেস ক্যাপসুল ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
প্রসঙ্গত, পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইরান তার বেসামরিক মহাকাশ কর্মসূচিকে অনেক দূর এগিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে। ২০১০ সালে ইরান একটি ‘কাভেশগার’ বা ‘এক্সপ্লোরার’ নামক ক্যারিয়ার ব্যবহার করে মহাকাশে জীবন্ত প্রাণীসহ প্রথম বায়ো-ক্যাপসুল পাঠায়।
এ বিষয়ে ইরানের টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ইসা জারেপুর বলেছেন, তেহরান শিগগিরই নতুন প্রজন্মের বায়ো-ক্যাপসুলগুলোর সাব-অরবিটাল পরীক্ষা চালাবে।
এর মধ্য দিয়ে ইরান তার মহাকাশ-বিষয়ক চূড়ান্ত লক্ষ্যের অনেক কাছে পৌঁছে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। #

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.