নাটোরে বিয়ে করতে এসে ধরা স্কুল পড়ুয়া ২ ছাত্রী


নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরে স্কুলপড়ুয়া দুই সমকামী মেয়েকে হেফাজতে নিয়েছে সদর থানা পুলিশ। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার একডালা থেকে তাদের হেফাজতে নেয় পুলিশ।
অপ্রাপ্ত বয়স হওয়ায় মেয়েদের অভিভাবকদের জিম্মায় দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান। এদের ভেতর একজনের বাড়ি নাটোর সদর উপজেলায় এবং অপরজনের বাড়ি সিলেটের কোতোয়ালি থানায়।
দুই শিক্ষার্থী হলো- নাটোর সদর উপজেলার একডালা এলাকার আমিনুল ইসলামের মেয়ে মোছা. সেতু খাতুন। সে একডালা মডেল হাইস্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী এবং সিলেটের কোতোয়ালি থানার সোবাহানী ঘাট এলাকার ফারুক আহমেদের মেয়ে তাবাসসুম জান্নাত। সে হযরত শাহজালাল দারুস সালাম ইয়াকুবিয়া মাদ্রাসার দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে একজন জানান, সাত মাস আগে তাদের ফেসবুকে পরিচয় হয়। এরপর ধীরে ধীরে ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও পরে সমকামিতার সিদ্ধান্ত নেয় তারা। এক পর্যায়ে বিয়েরও সিদ্ধান্ত নেয়।
নাটোর সদর থানার কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বিটিসি নিউজকে জানান, সিলেটের কোতোয়ালি থানা এলাকা থেকে তাবাসসুম জান্নাত নামে এক তরুণী নাটোর একডালা এলাকার সেতু নামে এক স্কুলছাত্রীর কাছে আসে। এসে দুজন বিয়ে করতে চাইলে এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। পরে স্থানীয়রা সন্ধ্যায় বিষয়টি থানা পুলিশকে জানালে ঘটনাস্থল থেকে সিলেটের ওই তরুণীকে হেফাজতে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। অপর তরুণীকে পরিবারের কাছে হেফাজতে দেওয়া হয়েছে। সিলেটের ওই তরুণীর পরিবারকে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা রওনা হয়েছে। তারা এলে তাদের কাছে ওই তরুণীকে হস্তান্তর করা হবে। পুলিশের হেফাজতে থাকা সিলেটের ওই তরুণীকে রাতে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে এ কর্মকর্তা জানান।
সংবাদ প্রেরক বিটিসি নিউজ এর নাটোর প্রতিনিধি খান মামুন। #

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.