আজ- শুক্রবার, ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

  কাশ্মীরে আবারও বিজেপি নেতা খুন       মার্কিন ও ইসরাইলি পরমাণু অস্ত্র সবার জন্য হুমকি : ইরান’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী       ভারত সীমান্তে “বিতর্কিত এলাকায়” হেলিপ্যাড নির্মাণ করছে নেপাল       সেনা-পুলিশ বাহিনীকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা       রাণীশংকৈলে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত-৯       চীনা যুদ্ধবিমান’র কাছে পাত্তাই পাবে না ভারত’র রাফায়েল!       “দিল্লি চাই” বলে ইমরানকে খোঁচা সাবেক স্ত্রী রেহাম’র       ভাসছে মুম্বাই       করোনা প্রতিরোধে দামুড়হুদার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন যুবলীগের মাস্ক বিতরণ অব্যাহত       রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি ফারুক আর নাই       বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার সিরাজ উদ্দিন লস্কর আর নেই       র‌্যাব-৫ রাজশাহীর মাদক বিরোধী অভিযান ইয়াবসহ আটক       র‌্যাব-৫, চঁপাপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্প কর্তৃক গাঁজার গাছসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক-১       রাসিকের নির্মাণাধীন বিভিন্ন বহুতল ভবনের কাজের অগ্রগতি সংক্রান্ত সভা অনুষ্ঠিত       নাটোরে সরকারী গম আত্মসাৎ মামলায় চেয়ারম্যান কারাগারে       নবীগঞ্জে ১৪ টি ডাকাতি মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার    

খুলনায় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও যুবলীগের নেতা মিনা কামাল বন্দুকযুদ্ধে নিহত

খুলনা ব্যুরো: খুলনার রূপসা উপজেলার নৈহাটি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও যুবলীগের নেতা মোস্তফা কামাল ওরফে মিনা কামাল (৫৬) র‌্যাব-৬ এর সাথে ‌‍’বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন।কামালের বিরুদ্ধে ৯টি হত্যাসহ ২৫টিরও বেশী মামলা রয়েছে। তিনি রুপসা উপজেলার মিনহাজ উদ্দিনের ছেলে।
আজ বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) ভোরে বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার খুলনা-মোংলা মহাসড়কের বাবুরবাড়ি এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
খুলনা র‌্যাব-৬ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল রওশনুল ফিরোজ বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে জানান, মাদক বিক্রেতাদের সাথে গোপন বৈঠকের খবর পেয়ে রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাছে বাবুর বাড়ি এলাকায় গেলে তারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়।
আত্মরক্ষার জন্য র‌্যাবও গুলি চালায়। একপর্যায়ে সশস্ত্র মাদক কারবারিরা পিছু হটলে ঘটনাস্থলে গুরুত্বর আহত অবস্থায় মিনা কামালকে পাওয়া যায়।
পরে মিনা কামালকে রামপালের ঝনঝনিয়া হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মৃত্যু ঘোষনা করেন। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, ৫০০ পিস ইয়াবা, একটি চাকু ও নগদ ৬৭ হাজার টাকা উদ্ধার করে।
রামপাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ দেলোয়ার হোসেন বিটিসি নিউজ এর প্রতিবেদককে বলেন, আমরা ঝনঝনিয়া হাসপাতাল থেকে কামালের মরদেহ উদ্ধার করেছি। সুরহাতল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি। র‌্যাবের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। মামলা দায়ের হলে আরও বিস্তারিত জানা যাবে বলে জানান তিনি।
পুলিশের একাধিক সূত্র জানিয়েছেন, জেলা পুলিশের শীর্ষ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীর তালিকায় রয়েছে তার নাম। কয়েকটি হত্যাসহ ২৫টির বেশি মামলা, শতাধিক জিডি রয়েছে তার বিরুদ্ধে। নিজ বাড়িতে বিচারালয়ের নামে বসিয়েছিলেন টর্চার সেল। সেখানে বিচার-সালিসের নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অর্থ আদায়ে চালানো হতো শারীরিক-মানসিক নির্যাতন।তিনি দখল, চাঁদাবাজি, অস্ত্র ও মাদক বাণিজ্য করে গড়ে তুলেছেন বিপুল অবৈধ সম্পদ।
মিনা কামাল ও তাঁর বাহিনীর হাতে গত ১০ বছরে দুই শতাধিক মানুষ নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। খুন হয়েছেন ৯ জন।
পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন ১০জন। ভয়ে-আতঙ্কে সহায়-সম্বল রেখে পরিবার নিয়ে অন্যত্র পালিয়ে গেছে কয়েক শ’ পরিবার। মিনা কামালের সন্ত্রাসী বাহিনীর কাছে জিম্মি ছিল বিপুল সংখ্যক মানুষ।

সংবাদ প্রেরক বিটিসি নিউজ এর খুলনা ব্যুরো প্রধান এইচ এম আলাউদ্দিন এবং মাশরুর মুর্শেদ। #

Comments are closed.