ব্রেকিং নিউজ

আজ- শনিবার, ২৭শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই জুলাই, ২০২০ ইং

শিরোনাম

  মাদকদ্রব্যে’র তালিকায় “টাপেন্টাডল”কে যুক্ত করে গেজেট প্রকাশ       রাজশাহীতে ব্যাটারীচালিত অটোরিক্সার সাথে যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত-২       চিত্রনায়িকা তমা মির্জা পরিবার সহ করোনায় আক্রান্ত       কুমিল্লায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও তার ভাইদের হাতে চাচাতো ভাই খুন, আটক-৩       করোনা’র উৎস খুঁজতে চীনের পথে ডব্লিউএইচও’র বিশেষজ্ঞ টিম       টলিউডে করোনা’র হানা : আক্রান্ত রঞ্জিত-কোয়েলসহ পরিবার       র‌্যাব-৫ এর মাদক বিরোধী অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার       রাজশাহীর পবায় বাসের ধাক্কায় এক ট্রলিচালক নিহত       আল জাজিরা’র সাংবাদিকদের তলব : মালয়েশিয়া পুলিশ’র       আর মাত্র দুই মাস পরই মহামারি করোনা’র ভ্যাকসিন       প্রেসিডেন্ট হলে প্রথম দিনই ট্রাম্প’র সিদ্ধান্ত বাতিল করবেন বাইডেন       মাছবাহী ট্রাক থেকে ১০ হাজার ইয়াবা ও ৫ হাজার কেজি মাছ জব্দ, আটক-২       উজানের ঢল ও ভারী বর্ষণে ফের তিস্তার পানি বৃদ্ধি       বরিশালের শাশুড়ী কর্তৃক প্রবাসী জামাতার ভবন দখলের অভিযোগ : থানায় ডায়েরী       খুমেক ল্যাবে ৮৪ জনের করোনা পজেটিভ       হবিগঞ্জে নতুন ২৯ জন করোনায় আক্রান্ত    

করোনার আতঙ্ক রয়েছে ঠিকই : খিদের চেয়ে করোনা ভাল!

ছবি: সংগৃহীত

বিটিসি আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনার আতঙ্ক রয়েছে ঠিকই। কিন্তু খিদের সমস্যা তার চেয়ে কোনও অংশে কম নয়। এক দিন করোনার আতঙ্কে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে কর্মস্থল থেকে বাড়ি ফিরেছিলেন যে পরিযায়ী শ্রমিকেরা, অভাবের তাড়নায় তাঁদের অনেকেই এখন বাড়ি ছেড়ে কাজে ফিরতে মরিয়া।

উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের নিজের এলাকা গোরক্ষপুর থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে দেওরিয়ার বাসস্ট্যান্ড থেকে গত শনিবার বাস ধরছিলেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা। দিবাকর প্রসাদ, খুরশিদ আনসারিরা গোরক্ষপুরে যাবেন। সেখান থেকেই মহারাষ্ট্র, গুজরাতে পৌঁছনোর বিশেষ ট্রেন ছাড়ছে।

একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে খুরশিদ জানান, মুম্বইয়ে কাপড় সেলাইয়ের যে কারখানাটিতে তিনি কাজ করতেন, সেটি এখনও বন্ধ। এক মাস আগে তিনি উত্তরপ্রদেশে ফিরে এসেছিলেন, এখন আবার যাচ্ছেন কাজের সন্ধানে।

খুরশিদের কথায়, ‘‘উত্তর প্রদেশে কাজ পেলে আর ফিরতে চাইতাম না। আমার কারখানা আজও বন্ধ। তবে যে কোনও জায়গায় কাজের খোঁজে বাড়ি থেকে বেরোতে হয়েছে আমাকে। কারণ, খিদের চেয়ে করোনা ভাল।’’ তাঁর যুক্তি, খিদেয় সন্তানদের মৃত্যুর চেয়ে করোনায় তাঁর মৃত্যু হওয়া ভাল।

করোনার আতঙ্কে কর্মস্থল থেকে কয়েকমাস আগে থেকেই বাড়ি ফিরতে শুরু করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের প্রায় ৩০ লক্ষ শ্রমিক। এখন চরম আর্থিক সঙ্কটের মধ্যে তাঁদের অনেকেই আবার কাজের খোঁজে বাড়ি ছাড়ছেন। যেমন, দিবাকর। কলকাতার একটি সংস্থায় কাজ করেন তিনি। হোলির সময়ে বাড়ি এসে লকডাউনের কারণে উত্তর প্রদেশেই আটকে ছিলেন। এই মুহূর্তে তাঁর কর্মস্থল খুলে গিয়েছে। স্ত্রী ও পাঁচ সন্তানের কথা ভেবে তিনি কলকাতায় ফিরছেন। দিবাকর জানান, করোনার কথা ভেবে ভয় পাচ্ছেন ঠিকই, কিন্তু বাড়িতে আটকে থাকলে পরিবার চালানো সম্ভব হবে না।

যোগী সরকার অবশ্য দাবী করছে, ছোট শিল্পে ৬০ লক্ষ কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে। রোজগার নিশ্চয়তা প্রকল্পেও যোগ দিয়েছেন রেকর্ড সংখ্যক মানুষ। তবে পূর্ব উত্তর প্রদেশের সিদ্ধার্থ নগরের মহম্মদ আবিদের মতো কর্মীরা কিন্তু ফের রাজ্য ছেড়ে যেতে চাইছেন। মুম্বইয়ে ২০ বছর ধরে এসি সারাইয়ের কাজ করতেন আবিদ। তিনি বলেন, ‘‘মুম্বইয়ে রোজগার অনেক বেশী।…আর উত্তর প্রদেশে যাঁর কাছেই যাবেন, শুনতে হবে, কাজ নেই।’’(সূত্র: আনন্দ বাজার)। #

Comments are closed.