ব্রেকিং নিউজ

আজ- বৃহস্পতিবার, ৩০শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

শিরোনাম

  উজিরপুরে সিরাজুল ইসলামকে শোলক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সম্পাদক হিসেবে দেখতে চায় এলাকাবাসী       পাবনা ডিস্ট্রিক্ট কিন্ডারগার্টেন ঔনার’স এ্যাসোসিয়েশন’র আয়োজিত বৃত্তি পরীক্ষায় কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠিত       “মায়ের জন্য শিশু দুটির কান্না যেন থামছেই না”        আদমদীঘিতে ৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার       রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের বার্ষিক পুরস্কার প্রদান ও মেধাবৃত্তির উদ্বোধনে নারীনেত্রী রেনী       সমাবর্তনের জন্য রাবির দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষকদের আন্দোলন স্থগিত       প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী শুক্রবার রাজশাহী আসছেন       পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শুক্রবার রাজশাহী আসছেন       প্রশাসন নিশ্চুপ! নিষেধাজ্ঞা মানছে না রাবি শিক্ষার্থীরা       লাইনের ত্রুটির কারণেই রংপুর এক্সপ্রেসে সামান্য আগুন, ক্ষয়ক্ষতি হয়নি : রেল সচিব       উল্লাপাড়ায় রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে আগুন       প্রেমিক প্রেমিকার বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও       পঞ্চগড়ে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু       নাটোরে অস্ত্র সহ এক যুবক গ্রেফতার       শ্যামলী পরিবহনে ইয়াবার চালান পঞ্চগড়ে যাত্রী আটক       পলাশবাড়ীতে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত    

ওজন কমানো থেকে লিভারের স্বাস্থ্য রক্ষা, জিরের গুণাগুণ

বিটিসি নিউজ ডেস্ক: শুধু স্বাদকোরকের তৃপ্তিই নয়। জিরা মশলার বেশীরভাগই আয়ুর্বেদিক গুণাগুণে সমৃদ্ধ। সে রকম গুণসম্পন্ন মশলার মধ্যে জিরা অন্যতম। রান্নার এর বহুল ব্যবহার। পাশাপাশি, ইউরোপে,বিশেষ করে পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের রান্নাতেও জিরে দেওয়া হয়। খ্রিস্টের জন্মের কয়েক হাজার বছর আগে প্রাচীন পারস্য, ব্যাবিলন এবং মিশরীয় সভ্যতায় জিরে খাওয়ার প্রচলন ছিল।

রান্নার স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি জিরের স্বাস্থ্যসম্মত গুণাগুণ প্রচুর :-

হজমে সাহায্য:

বহুদিন ধরেই জিরের ব্যবহার হয়ে আসছে হজমের সহায়ক হিসেবে। জিরের প্রভাবে বাড়ে হজমে সহায়ক উৎসেচকের ক্ষরণ। ফলে হজমের প্রক্রিয়া দ্রুত হয়।তা ছাড়া জিরের জন্য যকৃৎ বা লিভার থেকে পিত্ত বা বাইল ক্ষরণ বাড়ে। এই পিত্ত-ও সাহায্য করে পরিপাক ক্রিয়ায়।

লোহার উৎস:

জিরের দানা প্রাকৃতিক ভাবে লোহার উৎস। এক চামচ জিরেগুঁড়োয় আছে ১.৪ মিলিগ্রাম লোহা বা আয়রন।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ:

আধুনিক গবেষণা বলছে, শরীরের ক্ষতিকারক ট্রাইগ্লিসারইড নিয়ন্ত্রিত থাকে জিরের প্রভাবে।

সরাসরি জিরে সেবনের পাশাপাশি জিরে ভেজানো জলের উপযোগিতার কথাও বলা হয়েছে আয়ুর্বেদে। রাতে এক কাপ জলে ভিজিয়ে রাখুন অর্ধেক চামচ জিরে। সকালে উঠে খালি পেটে পান করুন। অনেকে গোটা জিরে ফুটিয়েও মিশ্রণ বানান। তারপর ওই ঈষদুষ্ণ জল পান করেন। জিরে মিশ্রিত জল পান করার গুণাগুণ অনেক। আসুন দেখে নিই এই মিশ্রণ পান করার ভাল দিক কী কী:

# হজম প্রক্রিয়া এবং পাকস্থলীর স্বাস্থ্যের জন্য সহায়ক

# বাড়তি মেদ ঝরিয়ে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

# অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় হজমের গণ্ডগোল কম রাখতে সাহায্য করে। মাতৃদুগ্ধের পরিমাণ বাড়ায়।

# রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

# মধুমেহ রোগীদের জন্যও উপকারী।

# নিয়্ন্ত্রণে থাকে উচ্চরক্তচাপ।

# ভাল থাকে লিভারের স্বাস্থ্য।

# রক্তাল্পতা দূর করে কর্মক্ষমতা বাড়ায়।

# চুলের জেল্লা বজায় থাকে।

# বয়সের ছাপ মুছে এবং ব্রণ দূর করে ত্বকের চাকচিক্য ধরে রাখে।

এ বার সময়ে অসময়ে আপনার মুশকিল আসান হবে মশলার কৌটোর এই সদস্য-ই#

Comments are closed.